www.durbinnews.com::জানি এবং জানাই

ফেনীর ইসমাইল যেভাবে ঢাকার সম্রাট হন



 নিজস্ব প্রতিনিধি    ৬ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার, ১:৪৪   চলতি হাওয়া বিভাগ


ফেনীর পরশুরামের ছেলে ইসমাইল হোসেন চৌধুরী। ঢাকায় এসে হলেন সম্রাট। শুধু নামে নয়, কাজেও। পুরো ঢাকা, বিশেষত ঢাকা দক্ষিণে ছিল তার একক নিয়ন্ত্রণ। চাঁদাবাজি, টেণ্ডারবাজি, ক্যা’সিনো কাণ্ড, কোথায় পদচারণা নেই তার। ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা। নেতা-কর্মী-সমর্থকে বেষ্টিত থাকেন সব সময়। আন্ডারওয়ার্ল্ডে তার একচ্ছত্র দাপট। এ লাইনে গুরু তিনিই। রয়েছে একাধিক শিষ্য। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় সম্রাটের রাজনৈতিক জীবন শুরু। সেটা ১৯৯০ সাল। সেই সময় তিনি ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন। এরশাদবিরোধী আন্দোলনের রমনা অঞ্চলে সংগঠকের দায়িত্বে ছিলেন। এ কারণে তখন নির্যাতনসহ জেলও খাটতে হয় তাকে। এরপর থেকেই ‘সম্রাট’ খ্যাতি পান। ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী ওরফে সম্রাটের পৈত্রিক নিবাস ফেনীর পরশুরাম উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের পূর্ব সাহেবনগর গ্রামে। তার পিতার নাম ফায়েজ উদ্দীন চৌধুরী। দুই ভাই ও দুই  বোনের মধ্যে সবার বড় সম্রাট। ১৯৯১ সালে ছাত্রলীগে থাকা অবস্থায় এরশাদের পতনের পর ক্ষমতায় আসে বিএনপি সরকার। সে আমলে সম্রাটের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়। এরপর ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় যুবলীগের একজন প্রভাবশালী নেতা হিসেবে পরিচিতি পান তিনি। ১/১১-এর রাজনৈতিক  প্রেক্ষাপট পরিবর্তনের সময় সম্রাট যুবলীগের প্রথমসারির নেতা ছিলেন।সম্রাটের চাঁদাবাজির হাতেখড়ি ২০০১ সালে। সংগঠন চালানোর নামেই চাঁদাবাজিতে নামে তিনি। এ সময় বিভিন্ন অফিসে, বিভিন্ন লোকের সঙ্গে  যোগাযোগ শশুরু করেন। ব্যবসায়ীক মহলের যোগাযোগ গড়ে ওঠে তার। ২০০৬ সালের পর যখন ওয়ান ইলেভেন আসে সেই সময় সম্রাট আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হন। এ সময় দল পরিচালনা করা, যুবলীগের ঢাকা মহানগরীকে ঠিক রাখার মূল কাণ্ডারি ছিলেন ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট।এরপর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে রাতারাতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট বড় ফ্যাক্টরে পরিণত হন। বিশেষ করে মতিঝিল পাড়ায় তার একচ্ছত্র আধিপত্য কায়েম হয়। দ্রুতই মতিঝিল পাড়া তার দখলে চলে যায়। এই সময়েই তার সঙ্গে সিঙ্গাপুরের কানেকশন হয়। সিঙ্গাপুরে যে ক্যাসিনো বাণিজ্য এবং নানারকম ব্যবসা বাণিজ্যের সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়। একদিকে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজির কাঁচা টাকা অন্যদিকে সিঙ্গাপুরের হাতছানি দুইয়ে দুই মিলিয়ে সম্রাট নগরীতে আত্মপ্রকাশ করে।  এরপর সবার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যান ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট। সম্রাট সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের চেয়ে অর্থ উপার্জনের দিকেই বেশি মনোনিবেশ করেন।




 এ বিভাগের অন্যান্য


ছাত্রলীগ নেতার সাড়ে ৪ কোটি টাকা ফেরত দেয়ার খবর সঠিক নয়


ব্যাংক ঋণ নিয়ে পাতানো খেলা চলছে


হাজার হাজার বিরোধী নেতাকর্মীদের মুক্তি দেন নোবেলজয়ী আবি


তসলিম নাসরিনের শিবলিঙ্গ পুজায় সমস্যা নেই


বুয়েট ভিসি নিয়ে আবুল হায়াতের যে বক্তব্য ভাইরাল


অমিত সাহার সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে


অমিত সাহা অবশেষে গ্রেপ্তার


ভারত নিয়ে স্ট্যাটাস: আওয়ামী লীগ নেতা বহিষ্কার


সময়ের প্রতিবাদী মুখ


বুয়েট ছাত্রদের ১০ দফায় যা বলা হয়েছে


যেভাবে বাংলাদেশের উপকূলে নজরদারি করবে ভারত


আবরারকে নিয়ে ভারতীয় তরুণীর দেয়া পোস্ট ভাইরাল


ছাত্রলীগের টর্চার সেল, রুম নম্বর ২০১১


ফেসবুকে ভারতবিরোধী স্ট্যাটাস দিয়েছিল বুয়েটছাত্র আবরার


দেশ ছেড়ে পালাবো না





All rights reserved www.durbinnews.com